মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কার্যবিবরণী ও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

সিরাজদিখান উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির ফেব্রুয়ারি/২০১৬ মাসের সভার কার্যবিবরণী।

 

সভাপতিঃ

 

রওনক আফরোজা সুমা

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

সভার তারিখঃ

 

২৮/০২/২০১৬খ্রিঃ।

সময়ঃ

 

সকালঃ ০৯.৩০টা।

সভার স্থানঃ

 

উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষ, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

               

                সভায় উপস্থিত সদস্যদের নামের তালিকা পরিশিষ্ট ‘ক’ -তে দেখানো হল।

                সভাপতি উপস্থিত সদস্যদের স্বাগত জানিয়ে সভার কাজ শুরু করেন।সভায় সিরাজদিখান উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সম্মানিত উপদেষ্টা উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব মহিউদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিগত সভার কার্যবিবরণী পাঠ করে শুনানো হয় এবং কোনরূপ সংশোধনী না থাকায় সর্বসম্মতিক্রমে তা অনুমোদিত হয়।

 

১।             আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিঃঅফিসার ইন-চার্জ, সিরাজদিখান থানাডিসেম্বর/২০১৫ ও জানুয়ারি/২০১৬মাসেরঅপরাধ চিত্রের তুলনামূলক বিবরণী সভায় তুলে ধরেন। ‘‘অপরাধ চিত্র’’নিম্নরূপঃ

 

মাসের নাম

খুন

ডাকাতি/ দস্যুতা

অপহরণ

নারী ও শিশু নির্যাতন

ধর্ষণ

এসিড নিক্ষেপ

অগ্নিসংযোগ

দ্রুতবিচার

 

 

 

অন্যান্য

মোট

ডিসেম্বর/২০১৫

০১

-

-

০১

-

-

-

-

-

০২

জানুয়ারি/২০১৬

০১

-

-

০২

-

-

-

০১

-

০৪

        

অপরাধ চিত্র  পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, ডিসেম্বর/২০১৫মাসে০২টিজঘন্য অপরাধ  সংগঠিত হয়েছে। অপরদিকে জানুয়ারি /২০১৬ মাসে ০৪‘টি জঘন্য অপরাধ সংগঠিত  হয়েছে। অফিসার ইন চার্জ সভাকে জানান যে, জানুয়ারি/২০১৬মাসের এ পর্যন্তমাদক বিরোধী ২২ টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এতে করে২৫ লিঃ দেশী চোলাই মদ, ৩৩০ গ্রাম গাজা ও ৫০৮ পিছইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে।তিনি বলেন,অন্যান্য থানার তুলনায় সিরাজদিখান উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অপেক্ষাকৃত ভাল। এ ধারা অব্যাহত রাখার জন্য তিনিসংশ্লিষ্ট সকলের সহায়তা কামনা করেন। তিনি বলেন, আগামী ২২ মার্চ সিরাজদিখান উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে এবং ৩১ মার্চ ২য় পর্যায়ের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে পারে এ জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের সহায়তা কামনা করেন। 

 

ক্রম 

আলোচনা

সিদ্ধান্ত

বাস্তবায়নে

০২

চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, সন্ত্রাস, মাদক, নারী ব্যবসা, বাল্য বিবাহ ও যানজটঃ

সাধারণ আলোচনায় অংশ গ্রহণ করে উপস্থিত সদস্যগণজানান যে, কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সিরাজদিখান উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল আছে।তারা বলেন, এলাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ প্রশাসনের সাথে সংশ্লিষ্ট সবাই একযোগে কাজ করলে এলাকার সর্বত্র স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করবে। এ জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের বিশেষ ভূমিকা পালন করতে হবে।

আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে নিয়মিত সর্বদলীয় ও সর্বধর্মীয়সভা করতে হবে।চুরি-ডাকাতিরোধে স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে পালাক্রমে প্রহরাপ্রদান ও পুলিশী টহল জোরদার করতে হবে।কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম জোরদার করতে হবে।

  

অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানা,  সকল ইউপি চেয়ারম্যান,সিরাজদিখান।

 

চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ ইভটিজিং, মাদক, চুরি ডাকাতিও বাল্যবিবাহের সমস্যা সমাধানে তৃনমূল পর্যায়ে ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানদেরজনমত গড়ে তোলার অনুরোধ জানান। তিনি ইভটিজিংকারীদেরজনগণের সহায়তায় ধরে আইনের হাতে সোপর্দ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকেঅনুরোধ জানান।তিনি আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনসুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে পারে এ জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের সহায়তা কামনা করেন।

ইভটিজিং, মাদক ও বাল্যবিবাহের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।সন্ত্রাস ও মাদকের বিষয়ে আরও অধিক গুরুত্ব দিতে হবে।

বাল্য বিবাহ,  ইভটিজিং, মাদক, চুরি-ডাকাতিও সন্ত্রাসী, নাশকতা ও জঙ্গিবাদের সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানাকে বিষয়টি অবহিত করতে হবে। প্রতিটি পাড়া/মহল্লা/ওয়ার্ড পর্যায়ে মসজিদের ইমাম, ইউনিয়নের কাজী,ওলামা-মাশায়েকসহ সমাজের সর্বস্তরের  জনসাধারণকে নিয়ে সন্ত্রাসবিরোধী/ আইনশৃংখলা কমিটি গঠন করে নিয়মিত সচেতনতামূলক সভা করতে হবে। আগামী ২২ মার্চ সিরাজদিখান উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১০টি ও ৩১ মার্চ  দ্বিতীয় পর্যায়ে অবশিষ্ট ০৪টি ইউনিয়ন পরিষদেরসাধারণনির্বাচনইউনিয়নেযাতে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে পারে এ জন্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, নির্বাচনে দায়িত্ব প্রাপ্ত সকল  স্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নির্বাচনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের সর্বাত্মক সহায়তা প্রদান করবেন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে একে অপরের প্রতি সম্মানবোধ বজায় রেখে নির্বাচন করবেন। 

   

  

অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানা,নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী,সকল ইউপি চেয়ারম্যান,  সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।     

 

০৪।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, দেশ প্রেম ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দল-মত নির্বিশেষে দেশের উন্নয়নে  সকলকে  এক  যোগে  কাজ  করে যেতে হবে। দেশ থেকে বাল্য বিবাহ,নারী ও শিশু নির্যাতন,  ইভটিজিং, মাদক, চুরি-ডাকাতিও সন্ত্রাসী, নাশকতা ও জঙ্গিবাদ দূর করতে হবে। তিনি কোথাও বাল্য বিবাহ ও ইভটিজিং -এর সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে তাকে ও অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানাকে বিষয়টি অবহিত করার জন্য   উপস্থিত আইনশৃংখলা কমিটির সদস্যদের অনুরোধ জানান। তিনি প্রতিটি পাড়া/মহল্ল­­া/ওয়ার্ড পর্যায়ে মসজিদের ইমাম, ইউনিয়নের কাজী, ওলামা-মাশায়েখসহ সমাজের সর্বস্তরের জনসাধারণকেনিয়ে সন্ত্রাসবিরোধী/আইনশৃংখলা কমিটি গঠন করে নিয়মিত সচেতনতামূলক সভা করার আহবান জানান। তিনি বলেন, আগামী ২২ মার্চ সিরাজদিখান উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩১ মার্চ দ্বিতীয় পর্যায়ে ০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে পারে এ জন্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, নির্বাচনে দায়িত্ব প্রাপ্ত সকল  স্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নির্বাচনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের সর্বাত্মক সহায়তা কামনা করেন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে একেঅপরের প্রতি সম্মানবোধ বজায় রেখে নির্বাচন করার জন্য তিনি আহবান জানান। এ ছাড়াও আগামী ০৮ মার্চ দুদকের তথ্য মেলা, র‌্যালী ও গণশুনানি, আন্তর্জাতিক নারী দিবস, ১০ মার্চ আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস, ১৭ মার্চ জাতীয় শিশু দিবস, ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপিত হবে। পুরো মাস জুড়ে এ সকল দিবস ও অনুষ্ঠানকে সফল করে তোলার জন্য তিনি সকলের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি সভাকে আরও জানান যে, গত ২৯/১১/২০১৫ খ্রিঃ তারিখে সিরাজদিখান উপজেলাকে বাল্য বিবাহমুক্ত ঘোষণা করার পর ফেব্রুয়ারি, ১৬ মাস পর্যন্ত ০২(দুই)টি বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করা হয়েছে। এ জন্য তিনি উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জনাব রাফিয়া ইকবাল, সহকারী কমিশনার(ভূমি) জনাব শাহিনা পারভীন, অফিসার ইন চার্জ জনাব ইয়ারদৌস হাসান ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

 

 

                অতঃপর সভয় আর কোন আলোচ্য বিষয় নাথাকায় সভাপতি উপস্থিত সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

 

 

 

 

 

 

 

(রওনক আফরোজা সুমা)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সভাপতি

উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটি

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

 

স্মারকনংঃ ০৫.৩০.৫৯৭৪.০০৬.০০.০০১.১৬-১৩৩(৬০)                                                                                                   তারিখঃ ২৯/০২/২০১৬খ্রিঃ।

 

  অনুলিপিঃ জ্ঞাতার্থে ও কার্যার্থেঃ

 

১।             জনাব সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, মাননীয়জাতীয়সংসদ সদস্য,মুন্সীগঞ্জ-১।

২।             বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, মুন্সীগঞ্জ।

৩।            পুলিশ সুপার, মুন্সীগঞ্জ।

৪।             চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, সিরাজদিখান।

৫।             ভাইস চেয়ারম্যান/মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

৬।            .......................................................................................................। 

 

 

 

 

 

(রওনক আফরোজা সুমা)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

 

 

 

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ

 

 সিরাজদিখান উপজেলা সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির ফেব্রুয়ারি/১৬ মাসের সভার কার্যবিবরণী

 

সভাপতিঃ

 

রওনক আফরোজা সুমা

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

সভার তারিখঃ

 

২৮-০২-২০১৬ খ্রিঃ।

সময়ঃ

 

সকালঃ ০৯.০০টা।

সভার স্থানঃ

 

উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষ, সিরাজদিখান।

 

           

            সভায় উপস্থিত সদস্যদের নামের তালিকা পরিশিষ্ট ‘ক’ তে দেখানো হলঃ

 

            সভাপতি উপস্থিত সদস্যদের স্বাগত জানিয়ে সভার কাজ শুরু করেন। সভায় সিরাজদিখান উপজেলা সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির সম্মানিত উপদেষ্টা উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব মহিউদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিগত সভার কার্যবিবরণী পাঠ করে শুনানো হয় এবং বিস্তারিত আলোচনান্তে  সর্বসম্মতিক্রমে তা অনুমোদিত হয়।

                                                                   

            সভার প্রথমেই সদস্যগণ স্ব স্ব পরিচয় ব্যক্ত করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সভাপতি, সিরাজদিখান উপজেলা সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটি সভাকে অবহিত করেন যে, সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক সমাজের সর্বস্তরের ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে অত্র উপজেলায় ও ১৪টি ইউনিয়নে ‘‘সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটি’’গঠন করা হয়েছে।তিনি সভার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য উপস্থিত সদস্যদের অবহিত করেন। তিনি যে কোন মূল্যে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধ বজায় রেখে সকলকে দেশের উন্নয়নে এক যোগে কাজ করে যাওয়ার অনুরোধ জানান।  তিনি ইউনিয়ন পর্যায়ে অবস্থিত সকল স্কুল কলেজ, ক্বওমী মাদ্রাসা, দাখিল মাদ্রাসা, অন্যান্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, অন্যান্য শিক্ষকমন্ডলী, সাংবাদিক ও মসজিদের ইমামদের নিয়ে প্রতিমাসের ৫ তরিখের মধ্যে ইউনিয়ন পর্যায়ে সভা করে এর কার্যবিবরণীউপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর প্রেরণ করার জন্য ইউপি চেয়ারম্যানদের অনুরোধ জানান। তিনিবলেন,দেশ থেকে বাল্য বিবাহ, নারী শিশু নির্যাতন,  ইভটিজিং, মাদক, চুরি-ডাকাতি ও সন্ত্রাসী, নাশকতা ও জঙ্গিবাদ দূর করতে হবে। তিনি কোথাও বাল্য বিবাহ ও ইভটিজিং -এর সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে তাকে ও অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখানথানাকে বিষয়টি অবহিত করার জন্য উপস্থিত সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের অনুরোধ জানান। তিনি প্রতিটি পাড়া/মহল্ল­­া/ওয়ার্ড পর্যায়ে মসজিদের ইমাম, ইউনিয়নের কাজী, ওলামা-মাশায়েকসহ সমাজের সর্বস্তরের জনসাধারণকে নিয়ে নিয়মিত সচেতনতামূলক সভা করার আহবান জানান। তিনি বলেন, আগামী ২২ মার্চ সিরাজদিখান উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩১ মার্চ দ্বিতীয় পর্যায়ে ০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে পারে এ জন্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল  স্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নির্বাচনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের সর্বাত্মক সহায়তা কামনা করেন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীপ্রার্থীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে একে অপরের প্রতি সম্মানবোধ বজায় রেখে নির্বাচন করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। এ ছাড়াও আগামী ০৮ মার্চ দুদকের তথ্য মেলা, র‌্যালী ও গণশুনানি, আন্তর্জাতিক নারী দিবস, ১০ মার্চ আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস, ১৭ মার্চ জাতীয় শিশু দিবস, ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপিত হবে। পুরো মাস জুড়েএ সকল দিবস ও অনুষ্ঠানকে সফল করে তোলার জন্য তিনি সকলের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি সভাকে আরও জানান যে, গত ২৯/১১/২০১৫ খ্রিঃ তারিখে সিরাজদিখান উপজেলাকে বাল্য বিবাহমুক্ত ঘোষণা করার পর ফেব্রুয়ারি, ১৬ মাস পর্যন্ত ০২(দুই)টি বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করা হয়েছে। এ জন্য তিনি উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জনাব রাফিয়া ইকবাল, সহকারী কমিশনার(ভূমি) জনাব শাহিনা পারভীন, অফিসার ইন চার্জ জনাব ইয়ারদৌস হাসান ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

 

উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয় বলেন, মসজিদে জুমার নামাজের খুতবার পূর্বে ইমাম সাহেবগণ সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ সংক্রান্ত বিষয়ে মুসল্লিদের মধ্যে এমনভাবে বয়ান করবেন যাতে করে মুসল্লীগণ সন্ত্রাস ও নাশকতার বিরুদ্ধে সচেতন হয়।  উপস্থিত সকলে এ বিষয়ে একমত পোষণ করেন। সভায় উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দ, অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানা, চেয়ারম্যান, বিআরডিবি এবং উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয়  সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ সংক্রান্ত বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। তারা সকলেই এক বাক্যে স্বীকার করেন যে, পূর্বের যে কোন সময়ের তুলনায় বর্তমানেসিরাজদিখান উপজেলায়আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সভায় বিস্তারিত আলোচনান্তে নিম্নলিখিত সিদ্ধান্তসমূহ সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়ঃ

 

সিদ্ধান্তঃ        

 

১।         যে কোন মূল্যে দল-মত নির্বিশেষে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার লক্ষ্যে সকলকে এক যোগে কাজ করে যেতে হবে।  

 

২।         প্রতিমাসের ০৫ তারিখের মধ্যে স্থানীয় ওলামা -মাশায়েখ ও সর্বস্তরের জনসাধারণকে নিয়ে প্রতিটি ইউনিয়নে ইউপি

চেয়ারম্যানগণ কর্তৃক  সন্ত্রাস ও নাশকতা কমিটির সভা করতঃ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। সভার

কার্যবিবরণী আবশ্যিকভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর প্রেরণ করতে হবে।  

 

৩।         প্রতিটি পাড়া/মহল­ায়/ওয়ার্ড পর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যানগণ কর্তৃক সমাজের সর্বস্তরের জনসাধারণকে নিয়ে কমিটি গঠন করে নিয়মিত সচেতনতামূলক সভা করতে হবে।

 

৪।         প্রতিটি মসজিদে জুম’আর নামাজের খুতবার পূর্বে সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ, জঙ্গীবাদী তৎপরতা বন্ধ এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার লক্ষ্যে ধর্মপ্রাণ মুসল্লি­দের অনুরোধ জানাতে হবে।

৫।         ধর্মকে ব্যবহার করে কোন বিশেষ মহল নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য যাতে কোন প্রকার ধংসাত্মক কর্মকান্ড চালাতে না পারে সে বিষয়ে জনসাধারণকে আরও অধিক সচেতন করে তুলতে হবে এবং এ বিষয়ে প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদে সভা, সেমিনার ইত্যাদির আয়োজন করতে হবে এবং এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর প্রতিবেদন প্রেরণ করবেন।

 

৬।         স্পর্শকাতর স্থান, প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনাসমূহ রক্ষায় নিয়মিত পালাক্রমে প্রহরার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

                         

৭।         ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এরূপ কথা, কাজ ও মন্তব্য থেকে সকলকে বিরত থাকতে হবে।

           

৮।         সন্দেহজনক কোন কিছু পরিলক্ষিত হলে সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানাকে

বিষয়টি অবহিত  করতে হবে।

 

বাস্তাবায়নঃউপজেলা নির্বাহী অফিসার, অফিসার ইন চার্জ, সিরাজদিখান থানা, উপজেলা সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির সকল

সদস্য, চেয়ারম্যান (সকল ইউপি), সদস্য, সকল মাদ্রাসার শিক্ষক, মসজিদের ইমাম ও খৃষ্টান ধর্মপল্লী প্রধান, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

            পরিশেষে সভায় আর কোন আলোচ্য বিষয় না থাকায় উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

                                                                                                                          

                                                                                                           স্বাঃ/-

(রওনক আফরোজা সুমা)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সভাপতি

উপজেলা সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটি

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

 

স্মারকনংঃ ০৫.৩০.৫৯৭৪.০০৬.০০.০০১.১৬-১৩৪(১০০)                                                    তারিখঃ ২৯/০২/২০১৬ খ্রিঃ।

 

অনুলিপিঃ জ্ঞাতার্থে ও কার্যার্থেঃ

 

১।         জনাব সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, মাননীয় সংসদ সদস্য, নির্বাচনী এলাকা মুন্সীগঞ্জ-১।

২।         বিভাগীয় কমিশনার, ঢাকা বিভাগ, ঢাকা।

৩।         বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, মুন্সীগঞ্জ।

৪।         পুলিশ সুপার, মুন্সীগঞ্জ।

৫।         চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

৬।         ভাইস চেয়ারম্যান/ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

৭।         ....................................................................................................................................................।  

     

                

(রওনক আফরোজা সুমা)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।